কাদের খানসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র

সোমবার, মে ১, ২০১৭

kader-khan
 গাইবান্ধা : গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের সাংসদ মনজুরুল ইসলাম লিটন হত্যা মামলায় প্রধান আসামি অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা আবদুল কাদের খানসহ আটজনকে অভিযুক্ত করে গতকাল বিকেলে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে। ঘটনার দীর্ঘ চার মাস পর গাইবান্ধার অতিরিক্ত মুখ্য বিচারিক হাকিম মইনুল হাসান ইউসুফের আদালতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সুন্দরগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবু হায়দার মো. আশরাফুজ্জামান এই অভিযোগপত্র জমা দেন। অভিযুক্ত অন্য সাতজন হল-সাংসদ মনজুরুল ইসলাম হত্যায় সরাসরি অংশ নেওয়া তিন কিলার মেহেদী হাসান, শাহীন মিয়া, আনোয়ারুল ইসলাম ওরফে রানাসহ সাবেক সাংসদ কাদের খানের গাড়িচালক আবদুল হান্নান, এপিএস শামসুজ্জোহা, প্রধান সহযোগী চন্দন কুমার সরকার ও তার ভগ্নিপতি সুবল কসাই। এদের মধ্যে চন্দন কুমার সরকার পলাতক। অন্য আসামিরা বর্তমানে গাইবান্ধা জেলা কারাগারে রয়েছে। মেহেদী হাসান ওরফে রাশেদুল ও শাহিন মিয়ার বাড়ি সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নের উত্তর সমস কবিরাজটারি গ্রামে। আনোয়ারুল ইসলাম ওরফে রানার বাড়ি একই ইউনিয়নের ভেলারায় কাজিরভিটা গ্রামে। চন্দন সরকার ও সুবল কসাইয়ের বাড়ি একই উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের মনমথ সরকারপাড়া গ্রামে এবং শামসুজ্জোহার বাড়ি ধোপাডাঙ্গা ইউনিয়নের কিশামত হলদিয়া গ্রামে।
সুন্দরগঞ্জ থানার ওসি আতিয়ার রহমান মোবাইল ফোনে বলেন, সাংসদ মনজুরুল হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী কাদের খানের লোকজন গাইবান্ধা-সুন্দরগঞ্জ সড়কের ধোপাডাঙ্গা এলাকায় গত বছরের ২ ডিসেম্বর একটি মোবাইল ছিনতাই করার সময় গুলিসহ একটি ম্যাগাজিন ফেলে রেখে যায়। ফেলে যাওয়া গুলিসহ ম্যাগাজিনটি ছিল কাদের খানের লাইসেন্স করা পিস্তলের। পরে থানা-পুলিশ ম্যাগাজিনসহ গুলি উদ্ধার করে থানায় জমা রাখে। গত ৩১ ডিসেম্বর লিটন হত্যাকাণ্ডের পর তদন্ত কর্মকর্তারা ছিনতাই হওয়া মোবাইল ও ঘটনাস্থলে কুড়িয়ে পাওয়া গুলিসহ ম্যাগাজিনের সূত্র ধরে সাংসদ হত্যার রহস্যের জট খুলতে সক্ষম হন। তদন্ত কর্মকর্তারা পরে ছিনতাইকারী ও সাংসদ লিটন হত্যাকাণ্ডে অংশ নেওয়া মেহেদী হাসান ওরফে রাশেদুল, শাহিন ও আনোয়ারুল ইসলাম ওরফে রানাকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতরা জিজ্ঞাসাবাদে সাংসদ লিটন হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকাসহ মূল পরিকল্পনাকারী হিসেবে কাদের খানের নাম প্রকাশ করে। পরে তাদের দেওয়া তথ্য মোতাবেক কাদের খানকে গ্রেফতার করা হয়।
কাদের খানকে গ্রেফতারের পর তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ও দেখানো মতে, আরও একটি অবৈধ পিস্তল তার গ্রামের বাড়ি পশ্চিম ছাপরহাটি থেকে উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারের পর সাংসদ মনজুরুলের শরীরে পাওয়া বুলেট ও ঘটনাস্থলে পাওয়া গুলির খোসা এবং কাদের খানের জব্দকৃত অস্ত্র ও গুলির ব্যালিস্টিক পরীক্ষায় মিল পাওয়া যায়। এছাড়া মূল পরিকল্পনাকারী কাদের খান, সরাসরি হত্যাকাণ্ডে অংশ নেওয়া ও সহযোগী আসামিরা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। ওসি বলেন, হত্যাকাণ্ডে ব্যবহূত অস্ত্র, আলামত, গুলি ও আসামিদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী এই মামলায় কাদের খানসহ আটজনকে অভিযুক্ত করে গতকাল বিকেলে গাইবান্ধার অতিরিক্ত মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। ওসি বলেন, সাংসদ মনজুরুল ইসলাম হত্যা মামলায় মোট ৩০ জনকে গ্রেফতার করা হয়। এর মধ্যে গ্রেফতারকৃত সাতজন এবং পলাতক একজনসহ মোট আটজনকে অভিযুক্ত করা হয়। অভিযোগপত্রের সঙ্গে একটি বৈধ পিস্তল, একটি অবৈধ পিস্তল, কয়েক রাউন্ড গুলি, হত্যাকাণ্ডে যাতায়াতের জন্য ব্যবহূত মোটরসাইকেল, ঘাতকদের ব্যবহূত হেলমেট, জ্যাকেট ও মাথার ক্যাপসহ ঘটনা সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন আলামত আদালতে জমা দেওয়া হয়।
গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে অবশিষ্ট ২৩ জনের নামে হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ওসি জানান, রংপুর বিভাগের বিভিন্ন জেলার ৩২ জন চৌকস কর্মকর্তার সমন্বয়ে কয়েকটি দলের মাধ্যমে দীর্ঘ চার মাসে তদন্তকাজ সম্পন্ন করা হয়। তদন্তকারী এক কর্মকর্তা বলেন, সাংসদ মনজুরুল ছিলেন জামায়াত-শিবিরের জন্য আতঙ্ক। তাই প্রথম দিকে হত্যার ঘটনায় জামায়াত-শিবির সন্দেহের তালিকায় ছিল। এ কারণে হত্যার প্রকৃত রহস্য উদ্ঘাটনে বিলম্ব হয়। গত বছর ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় সাংসদ মনজুরুল ইসলাম লিটন সুন্দরগঞ্জ উপজেলার সর্বানন্দ ইউনিয়নের শাহাবাজ গ্রামের নিজ বাড়িতে গুলিবিদ্ধ ও নিহত হন। পরদিন মনজুরুল ইসলামের বড় বোন ফাহমিদা বুলবুল বাদী হয়ে সুন্দরগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। গত ২১ ফেব্রুয়ারি আবদুল কাদের খানকে বগুড়া শহরের রহমান নগরের গরিব শাহ ক্লিনিকের বাসা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরদিন তাকে ১০ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়। রিমান্ডে থাকা অবস্থায় ২৫ ফেব্রুয়ারি সাংসদ মনজুরুল ইসলামকে হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন আবদুল কাদের খান। এ ছাড়া হত্যায় অংশ নেওয়া মেহেদী হাসান, শাহিন মিয়া ও আনারুল ইসলাম ওরফে রানাও আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

হাতিয়ার বিশিষ্ট শিল্পপতি মাহমুদ আলী রাতুল আর নেই

হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে খালেদা জিয়াকে

করোনা উপসর্গ নিয়ে উপসচিব মারুফ হাসানের ইন্তেকাল

সারাদেশে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় আরও ৯৪ জনের মৃত্যু

মৃত্যুর মিছিলে ভারত, একদিনে আক্রান্ত ২ লাখ প্রায়

করোনার মৃত্যুর মিছিলে কবর খুঁড়তে আধুনিক যন্ত্রের ব্যবহার

বায়তুল মোকাররম উড়িয়ে দিলে দুর্নীতিবাজ কমে যাবে: কাদের মির্জা

হাতিয়ায় কঠিন লকডাউন ভঙ্গ করে ইউএনওর ইফতার পার্টি

সুবর্ণচরে সুইসাইড নোট লিখে স্কুল ছাত্রী আত্মহত্যা

হাতিয়ায় দিনব্যাপী ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান

হাতিয়ায় আওয়ামীলীগ দলীয় চেয়ারম্যানপ্রার্থীর দুই কর্মীকে কুপিয়ে জখম

দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েও করোনা আক্রান্ত সাংসদ বাদশা

নোয়াখালীতে ৭৬ মামলায় ১লক্ষ ৫হাজার টাকা জরিমানা

করোনায় মারা গেলেন আবদুল মতিন খসরু

সম্মিলিত শক্তি দিয়ে করোনাকে পরাজিত করতে হবে- কাদের

এই সম্পর্কিত আরো