ছাত্রকে ইউএনওর চড়-থাপ্পড়, অজ্ঞান ৫ ছাত্রী

সোমবার, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১৮

Rangamati-UNO-HOME-PICরাঙ্গামাটি : রাঙ্গামাটির লংগদুতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোসাদ্দেক মেহদী ইমামের বিরুদ্ধে এসএসসি পরীক্ষা চলার সময় দুই কেন্দ্রে পরীক্ষার্থীদের বেধড়ক মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার লংগদু বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের তিনজন ও লংগদু উচ্চ বিদ্যালয়ের এক ছাত্রকে দেখাদেখি করার কারণে চড়-থাপ্পড় দেন ইএনও। এছাড়া বাংলা পরীক্ষার দিনও বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের আরো দুই শিক্ষার্থীসহ মোট ছয়জনকে চড়-থাপ্পড় দেন তিনি।

ইউএনওর এই ধরনের কাণ্ডের কথা জানার পর পাশের কেন্দ্র লংগদু উচ্চ বিদ্যালয়ের পাঁচ ছাত্রী ভয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে তাদের তাদের লংগদু স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও রাবেতা হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, শনিবার সকাল ১১টার দিকে ২০১৮ সালের এসএসসির গণিত পরীক্ষা চলাকালে কেন্দ্র পরিদর্শনে যান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোসাদ্দেক মেহদী ইমাম। এসময় পরীক্ষার্থীরা একে-অন্যের থেকে দেখাদেখি করলে ইউএনও ক্ষেপে গিয়ে জুনায়েদ ইসলাম পেয়ার নামে এক ছাত্রকে মারধর করেন। কেবল মারধরই নয়, একপর্যায়ে ওই শিক্ষার্থীকে শার্টের কলার ধরে টেনে আসনের বাইরে এনে চড়-থাপ্পড় মারতে থাকেন এবং অন্যত্র সরিয়ে নেন।

এ ঘটনা দেখে শুভ নামে হলের অন্য আরেক শিক্ষার্থী পেয়ারকে ইউএনও’র কাছে মাফ চাইতে বললে ইউএনও শুভকেও মারধর করেন বলে জানা গেছে।

শিক্ষার্থীদের ভাষ্য, কেবল মারধরই নয়, গালাগাল, ধমক ও ফাইল ছুড়ে মারাসহ বিভিন্ন অশোভন আচরণ করেন ইউএনও।

মারধরের বিষয়ে জুনায়েদ ইসলাম পেয়ার বলেন, সামান্য কারণে উনি আমাকে কতগুলো চড় মেরেছেন। উনি আমাকে আমার সিট থেকে অন্য জায়গায় (হলের মাঝখানে) নিয়ে গেছেন। আমি ঘটনার পর ভালোভাবে পরীক্ষাও দিতে পারিনি। আমার পরীক্ষাও খারাপ হয়েছে। হয়তোবা এই বিষয়ে আমার ফেল যাবে।

ইসমাঈল হোসেন নামে আরেকজন বলেন, ইউএনও স্যার আমাকে গত ১ ফেব্রুয়ারি বাংলা প্রথমপত্র পরীক্ষার দিনও মারধর করেন এবং আমার পাশের ছাত্রকে চড় মেরেছেন তিনি।

জাহাঙ্গীর নামের একজন অভিভাবক জানান, ইউএনওর এ ধরনের আচরণ শোভা পায় না। তিনি শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার হলে এমনভাবে মারধর করতে পারেন না। এতে করে ছাত্ররা ভয়ে কিছুই লিখতে পারেনি। তাদের ফলাফল ভালো না হলে এর দায় কে নেবে?

দায়িত্বে থাকা একজন পরিদর্শক বলেন, আমি দীর্ঘদিন ধরে পরীক্ষার হলে দায়িত্ব পালন করে আসছি। কোনও কর্মকর্তাকেই পরীক্ষার্থীর সাথে এমন অশোভণ আচরণ করতে দেখিনি। উনার এমন আচরণ দেখেও আমরা কোনো প্রতিবাদ করতে পারিনি।

শিক্ষার্থীদের মারধর করার বিষয়ে লংগদু বালিকা বিদ্যালয়ের কেন্দ্র সচিব ও প্রধান শিক্ষক রবি রঞ্জন চাকমা বলেন, এ বিষয়ে কোনো অভিভাবক ও শিক্ষার্থী আমার কাছে লিখিত কিংবা মৌখিক অভিযোগ করেনি। এছাড়া দায়িত্বরত কক্ষ পরিদর্শকরাও আমাকে কিছু জানায়নি। তবে শুনেছি ছাত্রছাত্রীরা হলের মধ্যে বিশৃঙ্খলা করলে ইউএনও স্যার ধমক দিয়েছেন।

মারধরের বিষয়টি সম্পূর্ণ অস্বীকার করে ইউএনও মোসাদ্দেক মেহদী ইমাম বলেন, আমি শিক্ষার্থীদের কোনো মারধর করিনি। শিক্ষার্থীদের ভালো জন্যই কেবল পরীক্ষার হলে একটু কড়াকড়ি দিয়ে ছিলাম।


করোনার ‘উদ্বেগজনক’ নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন

সুবর্ণচরে মোটরসাইকেল-ট্রলির মুখোমুখি সংঘর্ষে সেনা সদস্য নিহত

ধান ক্ষেত থেকে যুবকের মরদেহ উদ্ধার

ভাসানচর থেকে পালাতে গিয়ে ২৩ রোহিঙ্গা আটক

১ ডিসেম্বর থেকে বিআরটিসি বাসে শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া

দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন খালেদা জিয়া

ভূমিকম্পে কাঁপল দেশ

মেয়র পদ থেকে বরখাস্ত জাহাঙ্গীর আলম

ছেলে লন্ডনে তারেকের ‌বডিগার্ড, বাবা দেশে নৌকার মাঝি!

করোনায় বেড়েছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্ত

সপ্তম ধাপে ভাসানচর পৌঁছেল ৩৭৯জন রোহিঙ্গা

সেনবাগে ভোটকেন্দ্র সংলগ্ন এলাকা থেকে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার

চাঁদপুরে বাসের ধাক্কায় প্রাণ গেল তিন মাস্টার্স শিক্ষার্থীর

পুত্রবধূকে যৌতুকের জন্য পিটিয়ে হত্যা

হাতিয়ায় ইউনিয়ন যুবলীগের সম্মেলন, সভাপতি মাইন সম্পাদক মো: মিল্লাদ

এই সম্পর্কিত আরো