নোয়াখালীতে কয়েন চলে না ব্যাংকেও

বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২৬, ২০১৮

mudra-180425115112

মোহাম্মদ সোহেল, নোয়াখালী : ধাতব কয়েন ও ছোট কাগুজে নোট সবই যেন এখন অচল। রাষ্ট্রীয়ভাবে এসব মুদ্রা নিষিদ্ধ করা না হলেও নিচ্ছে না কেউই। এমনকি অর্থ বিষয়ক শেষ আশ্রয়স্থল ব্যাংকগুলোতেও এসব টাকা মূল্যহীন।

এগুলো নিয়ে এখন বিপাকে পড়েছেন নোয়াখালীর ব্যবসায়ীরা। জেলার খুচরা ও পাইকারী ব্যবসায়ীদের কাছে লাখ টাকার এসব মদ্রা জমে আছে। সরকারি-বেসরকারি কোনো ব্যাংকই গ্রহণ করছে না এসব কয়েন ও নোট।

ব্যবসায়ীরা যাদের কাছ থেকে মালামাল কিনেন, সেসব কোম্পানিও নেয় না এ ধরনের মুদ্রা। এ অবস্থায় ব্যবসায়ীরা শতকরা ১২ থেকে ১৫ টাকা ‘বাট্টা’ দিয়ে এসব মুদ্রা দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন। তাও আবার বাকিতে। ফলে ব্যবসায়ীদের যেন ‘গুড়ের লাভ পিঁপড়ে খাচ্ছে’ অবস্থা।

নোয়াখালী জেলা সদরের সোনাপুর বাজারে গিয়ে কয়েকটি বড় দোকানে দেখা গেছে বিভিন্ন অঙ্কের ধাতব মুদ্রা এবং ছোট অঙ্কের কাগুজে মুদ্রা জমে আছে। এসব মুদ্রা সিনথেটিক ব্যাগ, বস্তা এবং কাগজের কার্টনে ভর্তি করে গুদামে ফেলে রেখেছেন ব্যবসায়ীরা। কেবল বড় ব্যবসায়ী নয়, ছোট পুঁজির ব্যবসায়ীরাও আছেন এ সমস্যায়।

সোনাপুর বাজারে রুপা ট্রি’র মালিক নিগার জানান, তার নিকট ক্রেতাদের কাছ থেকে এক মাসে ধাতব মুদ্রা জমেছে কয়েক হাজার টাকার। একজন ছোট পুঁজির ব্যবসায়ীর কাছে যদি এত টাকা অলস পড়ে থাকে, তাহলে তিনি ব্যবসা করবেন কী করে, এই প্রশ্ন নিগারের।

বিডি ফুডসের বিক্রয় প্রতিনিধি মো. আলম জানান, পণ্য সরবরাহ করতে গিয়ে প্রতিনিয়তই খুচরা বিক্রেতাদের কাছ থেকে প্রচুর কয়েন এবং ছোট নোট বাধ্য হয়ে নিতে হয়। কিন্তু এসব কয়েন এবং নোট ব্যাংকে জমা নিতে চায় না। ফলে প্রায়ই শতকরা ১২ থেকে ১৫ টাকা লোকসানে এসব টাকা অন্যের হাতে তুলে দিতে হয়।

জেলা সদরের কালাহুজুরের মোড়ের মুদি ব্যবসায়ী মো.আজাদ উদ্দিন জানান, ছোট ব্যবসায়ীর হাতেই সাধারণত ছোট মানের নোট আসে বেশি। মহাজন, কোম্পানি বা ব্যাংকগুলো গরিববান্ধব নয়। তারা গরিবের হাতে থাকা ছোট নোটগুলো রাখে না। তার অভিযোগ, অনেক বেসরকারি ব্যাংক আছে যারা ১০টাকা, ২০টাকার নোটও রাখতে চায় না।

আজাদ জানান, তাদের প্রতিযোগিতা করে ব্যবসা করতে হয়। সব ক্রেতাই তো আর বড় নোট নিয়ে বাজারে আসেন না। তাই ছোট-বড় সব নোটই তাদের রাখতে হয়। আর এভাবেই ছোট নোটের বোঝা দিন দিন বড় হচ্ছে।

নোয়াখালী পৌর বণিক সমিতির সভাপতি সাইফ উদ্দিন সোহান জানান, এক সময়ে পাঁচ টাকা, দুই টাকা ও এক টাকার ধাতব কয়েন এবং পাঁচ টাকা ও দুই টাকার কাগুজে নোট আমাদের জন্য আর্শিবাদ ছিল। কিন্তু এ কয়েন ও নোট বর্তমানে অভিশাপে পরিনত হয়েছে। তিনি বলেন, জেলা শহরে ছোট-বড় প্রায় পাঁচ হাজার ব্যবসায়ী রয়েছেন। তাদের সবার কাছেই প্রতিদিন প্রচুর কয়েন এবং ছোট কাগুজে মুদ্রা জমা পড়ে। প্রতি মাসে শহরের ব্যবসায়ীদের কাছেই ৫ থেকে ৭ কোটি টাকার কয়েন এবং ছোট কাগুজে মুদ্রা জমা হয় বলে তিনি ধারণা দেন। তিনি বলেন, এটি সম্ভবত নোয়াখালীর সমস্যা নয়, সারা দেশের একই সমস্যা। এ বিষয়ে সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রদক্ষেপ নেয়া উচিত।

এ বিষয়ে সোনালী ব্যাংক লিঃ নোয়াখালী প্রধান শাখার এজিএম মো.হারুন অর রশিদ বলেন, মুদ্রা ব্যবস্থাপনাকে স্বাভাবিক রাখার জন্যই কয়েন ও ছোট টাকার কাগুজে নোটগুলো চালু রাখা হয়েছে। ব্যাংক এবং ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলো যদি কয়েন ও ছোট টাকার কাগুজে নোট আন্তরিকভাবে গ্রহণ করে তাহলে ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের সমস্যা থাকবে না। তিনি বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা উল্লেখ করে তাদের সীমাবদ্ধতার কথা স্বীকার করে বলেন, ছোট নোট ও কয়েন সবাই দিতে চায়, নিতে চায় না। তবে সমস্যাটি গুরুতর বলেও মন্তব্য করে তিনি বলেন, কয়েন বা ছোট নোটের ব্যাপারে কেবল সরকার বা বাংলাদেশ ব্যাংকই সমাধান দিতে পারে ।

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের প্রভাষক মো.শফিকুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে কথা বললে তিনি জানান, এ ধরনের ছোট টাকার কয়েন ও কাগুজে নোট ব্যাংক কিংবা বড় প্রতিষ্ঠানগুলো গ্রহন না করায় একদিকে যেমন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের মুলধন সংকট দেখা দিচ্ছে অন্যদিকে ক্ষুদ্র সঞ্চয়ের উপর আগ্রহ হারিয়ে যাচ্ছে। তাই এ ধরনের ছোট টাকার কয়েন ও কাগুজে নোট যেন সকল ব্যাংক এবং প্রতিষ্ঠান নিতে বাধ্য হয় সে জন্য সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংককে নীতি নির্ধারণ করতে হবে।


ব্যবসায়ীর গায়ে আগুন: স্ত্রীসহ গ্রেফতার হেনোলাক্সের মালিক

কোরবানির পশুর বাহারী নামে সরব পশুর হাট

হাতিয়ায় অসচ্ছল ৮ বীর মুক্তিযোদ্ধা পেল আবাসিক ভবন

ওজন মেপে গরু বিক্রি, ডেলিভারি ফ্রি

অনেক দেশেই এখন বিদ্যুতের জন্য হাহাকার: প্রধানমন্ত্রী

বিদ্যুতের বিল অস্বাভাবিক হলেও দেশ অন্ধকারে নিমজ্জিত : রিজভী

করোনায় আরও ৭ জনের মৃত্যু

প্রেসক্লাবে ব্যবসায়ীর গায়ে আগুন: হেনোলাক্সের মালিক-স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা

কোম্পানীগঞ্জে ৯ রোহিঙ্গা আটক

হাতিয়ায় নিষেধাজ্ঞা অমান্য করায় ১৩ মন মাছসহ ৪টি ফিসিং ট্রলার জব্দ

দেড় শতাধিক হজযাত্রীকে হোটেলে রেখে লাপাত্তা এজেন্সি

প্রেসক্লাবের সামনে গায়ে আগুন দেয়ার আগে ফেসবুকে যা লিখে গেলেন আনিস

আলেমদের মুক্তি না হলে হাইকোর্টে ঈদের জামাত হবে না : জাফরুল্লাহ

দুই ঘণ্টায় টুঙ্গিপাড়া থেকে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী

করোনায় একদিনে ১২ জনের মৃত্যু, ২ হাজার ছাড়াল শনাক্ত

এই সম্পর্কিত আরো