হাতিয়ায়  লোণা পানিতে ভেসে গেছে তরমুজসহ ৮৮ হেক্টর সবজি ক্ষেত

শনিবার, এপ্রিল ৩, ২০২১


ইসমাইল হোসেন কিরন : পুর্ণিমার অস্বাভাবিক জোয়ারের পানিতে গত ৬দিন ধরে দফায় দফায় প্লাবিত হচ্ছে নোয়াখালী দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার দুটি ইউনিয়নের নিন্মাঞ্চল। এর ফলে নলচিরা ও হরনী ইউনিয়নের কিছু জায়গায় বেড়িবাঁধ না থাকায় বিস্তীর্ণ এলাকা তিন-চার ফুট পানির নিচে তলিয়ে যাচ্ছে। কোথাও কোথাও পানির উচ্চতা আরও বাড়ছে। এতে করে তরমুজসহ রবিশস্যের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। কৃষি বিভাগের হিসেবে উপজেলার এই দুটি ইউনিয়নের ৮৮ হেক্টর জমির রবিশস্য একেবারেই ধ্বংস হয়ে গেছে। জোয়ারের পানি লবণাক্ত হওয়ায় ক্ষতির পরিমান অনেক বেশী হয়েছে।

উপজেলা কৃষি বিভাগ থেকে আর্থিক সহায়তার জন্য ক্ষতিগ্রস্থ রবিশস্য চাষীদের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে তাঁরা ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক ও ক্ষতির পরিমান উল্লেখ করে একটি বিবরণ জেলা অফিসে পাঠিয়েছে। তাতে নলচিরা ইউনিয়নের তুফানিয়াগ্রাম, পঞ্চায়েত, লামছড়ি, কলাপাড়া, গচিঙ্গা ও হরণী ইউনিয়নের ইসলামপুর গ্রামসহ ৬টি গ্রামের ৮৮ হেক্টর জমির রবিশস্য লোণা পানিতে প্লাবিত হয়ে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে উল্লেখ করেছে।

গত ২৮ মার্চ রবিবার থেকে উপজেলায় পূর্ণিমার প্রভাবে জোয়ারে পানির উচ্চতা বাড়ছে। প্রতিদিন চব্বিশ ঘন্টায় দুবার জোয়ার হচ্ছে। প্রতিবার জোয়ারে অন্তত ৮-১০ ঘন্টা নি¤œাঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে।

নলচিরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হুমায়ন কবির বাবলু জানান, পানি উন্নয়ন বোর্ড প্রতিবছর হাতিয়ার নদীর তীরবর্তী এলাকায় বেড়ীবাঁধ তৈরি করা হয়। কিন্তু নলচিরা ও হরণী ইউনিয়নের কিছু এলাকায় দরপত্র আহবান করতে একটু দেরি হওয়ায় ঠিকাদার এখনো কাজ শুরু করতে পারেনি। এতে এসব এলাকা দিয়ে সহজে জোয়ারের পানি লোকালয়ে ডুকে যাচ্ছে।

হরণী ইউনিয়নের চতলা ঘাট পানি ব্যবস্থাপনা কমিঠির সভাপতি মো: আরিফ বলেন, জোয়ারে পানিতে প্লাবিত এসব এলাকার বহু চাষী আদৌ কোন ফসল ঘরে তুলতে পারবে কি না, এনিয়ে আশঙ্কা রয়েছে। এরমধ্যে তরমুজের ক্ষতি হয়েছে সবচেয়ে বেশি। অনেক জায়গায় তরমুজচাষীদের ডুবে যাওয়া খেত থেকে ফসল বাঁচানোর ব্যর্থ চেষ্টা করতে দেখা গেছে। আবার বহু চাষীকে লোকসান গুনে হা হুতাশ করতে দেখা গেছে।

সরেজমিনে নলচিরা ইউনিয়নের তুফানিয় গ্রামে গিয়ে দেখা যায় অনেকেই ক্ষেত থেকে অপরিপক্ক তরমুজ তুলে নিচ্ছে। কেউ কেউ পানির নিচ থেকে গাছ তুলে পেলছে। তরমুজ ক্ষেতের মধ্যে দেখা হয় তুফানিয়া গ্রামের সবজি চাষী মো: খোকন (৬০) এর সাথে। আলাপ কালে সে জানায়, এই বছর ৩ একর জমিতে তরমুজ, বাদাম ও মরিচের চাষ করেছে সে। কিন্তু যে সময় ফষল বিক্রি করার কথা ঠিক তার পূর্ব মুহূর্তে জোয়ারের পানি ভেসে গেছে সব। ৩ একর জমির মধ্যে সামান্য কিছু তরমুজ বিক্রি করতে পারলেও বাদাম ও মরিচ বিক্রির সময় এখনো হয়নি। জোয়ারের পানি আর না আসলেও লবণাক্ততা থাকায় পানি চলে যাবার পর সবজি গাছ মরে যাবে বলে জানান সে।

শুক্রবার দুপুরে জোয়ারের পানিতে ডুবে যাওয়া ফসলের খেত দেখিয়ে একই ভাবে আরও কয়েকজন চাষী আক্ষেপ করে জানান, এই এলাকায় বেড়িবাঁধ না থাকাই চাষীদের সর্বনাশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সামনে আরও চার-পাঁচদিন একই ভাবে জোয়ারের পানির চাপ থাকবে বলেও চাষীরা জানান। এতে ক্ষতির পরিমাণ আরও বাড়বে বলেও চাষীদের ধারণা।

এ বিষয়ে হাতিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: নুরুল ইসলাম জানান, জোয়ারের পানিতে ক্ষতিগ্রস্থ চাষীদের আর্থিকসহ অন্যান্য সহায়তা করার জন্য তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। যা উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছে দেয়া হবে। এছাড়াও আগামি তিন-চারদিনের মধ্যে জেয়ারে পানির চাপ কমে আসবে বলেও জানান তিনি।

 

হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে খালেদা জিয়াকে

করোনা উপসর্গ নিয়ে উপসচিব মারুফ হাসানের ইন্তেকাল

সারাদেশে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় আরও ৯৪ জনের মৃত্যু

মৃত্যুর মিছিলে ভারত, একদিনে আক্রান্ত ২ লাখ প্রায়

করোনার মৃত্যুর মিছিলে কবর খুঁড়তে আধুনিক যন্ত্রের ব্যবহার

বায়তুল মোকাররম উড়িয়ে দিলে দুর্নীতিবাজ কমে যাবে: কাদের মির্জা

হাতিয়ায় কঠিন লকডাউন ভঙ্গ করে ইউএনওর ইফতার পার্টি

সুবর্ণচরে সুইসাইড নোট লিখে স্কুল ছাত্রী আত্মহত্যা

হাতিয়ায় দিনব্যাপী ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান

হাতিয়ায় আওয়ামীলীগ দলীয় চেয়ারম্যানপ্রার্থীর দুই কর্মীকে কুপিয়ে জখম

দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েও করোনা আক্রান্ত সাংসদ বাদশা

নোয়াখালীতে ৭৬ মামলায় ১লক্ষ ৫হাজার টাকা জরিমানা

করোনায় মারা গেলেন আবদুল মতিন খসরু

সম্মিলিত শক্তি দিয়ে করোনাকে পরাজিত করতে হবে- কাদের

মামুনুল হকের ‘স্ত্রী’রা নিখোঁজ কেন ?

এই সম্পর্কিত আরো