এগিয়ে গেলেন মমতা, বিশাল জয়ের পথে তৃণমূল

রবিবার, মে ২, ২০২১


আন্তর্জাতিক ডেস্ক : পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আসনে নন্দীগ্রামে এগিয়ে গেলেন তৃণমূলপ্রধান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এখন স্পষ্ট, বিজেপি হারতে চলেছে।

রোববার সকাল থেকে ভোটের খবরের বড় আকর্ষণ ছিল নন্দীগ্রাম। সেখানে দীর্ঘ সময় পিছিয়ে ছিলেন মমতা। তবে বেলা দুইটার পর থেকে পরিস্থিতি পাল্টাতে থাকে। সর্বশেষ মমতা প্রতিদ্বন্দ্বী শুভেন্দু অধিকারীর চেয়ে এগিয়ে রয়েছেন প্রায় ৮ হাজার ভোটে। দলীয় প্রধানের সঙ্গে বিজয়ের পথে রয়েছে তৃণমূল।

এখন পর্যন্ত প্রাপ্ত ফলাফলে ২০৭ আসনে এগিয়ে আছে মমতার দল তৃণমূল কংগ্রেস। আর ৮১ আসনে এগিয়ে আছে বিজেপি। অন্যদিকে এখন পর্যন্ত প্রাপ্ত ফলাফলে দুটি করে আসনে এগিয়ে আছে জোট ও অন্যনারা।

প্রাপ্ত ফলাফল বিশ্লেষণে নিশ্চিন্তে বলা যায় পশ্চিমবঙ্গে ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন তৃণমূল কংগ্রেস বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করতে যাচ্ছে।

এর আগে বিধানসভা নির্বাচনে মোট ২৯৪ আসনে ভোট অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম দফায় ২৭ মার্চ ৩০ টি আসনে , দ্বিতীয় দফায় ১ লা এপ্রিল ৩০ টি আসনে , ৩য় দফায় ৬ এপ্রিল ৩১ আসনে , চতুর্থ দফায় ১০ এপ্রিল ৪৪ আসনে , ৫ম দফায় ১৭ এপ্রিল ৪৫ আসনে, ৬ষ্ঠ দফায় ২২ এপ্রিল ৪৩ আসনে , ৭ম দফায় ২৬ এপ্রিল ৩৬ আসনে ভোট হওয়ার কথা থাকলেও দুই প্রার্থী করোনায় মারা যাওয়ায় ৩৪ টি আসনে ভোট হয়। সর্বশেষ ২৯ এপ্রিল চার জেলায় ৩৫ আসনে ভোট হয়। দ্বিতীয় ধাপ নির্বাচনের সময় সবার নজর ছিল নন্দীগ্রামে। সেখানে মমতার প্রতিদ্বন্দী ছিল শুভেন্দু অধিকারী । যিনি এক সময় মমতারই অনুগত ছিলেন। এছাড়া বাম-কংগ্রেস- আইএসএফ(ইন্ডিয়ান সেক্যুলার ফ্রন্ট)-সিপিএমের প্রার্থী ছিলেন পরিচিত মুখ মীনাক্ষী মুখোপাধ্যায়।

বিজেপিতে ক্ষোভ

‘এ বার, ২০০ পার’ স্লোগান নিয়ে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে অংশ নিয়েছিল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)। তবে নির্বাচনের ভোট গণনার প্রথম পর্বে সেই স্লোগানের বদলে বিজেপি কার্যত ১০০ আসন পার হওয়া নিয়ে ভাবছে। আর এমন পরিস্থিতির জন্য দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব তথা নরেন্দ্র মোদি ও অমিত শাহের দিকে আঙুল

তোলা শুরু করে দিয়েছেন বিজেপির রাজ্য নেতাদের একাংশ।

নির্দিষ্ট করে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের নাম করে আঙুল না তুললেও বিজেপির বিক্ষুব্ধ নেতাদের ইঙ্গিত স্পষ্ট। পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির এক শীর্ষ নেতার ভাষায়, ‘সেনাপতি হয়েছিলেন যারা, জিতলে তারা কৃতিত্ব নিতেন। এখন হারের দায়ও তাদের নিতে হবে।’

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, প্রথম থেকেই পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের দায়িত্ব রাজ্যের হাত থেকে নিয়ে নেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। কোন এলাকায় দল কেমন অবস্থায় রয়েছে তা দেখতে ৫ জন কেন্দ্রীয় নেতার হাতে দায়িত্ব দেওয়া হয়। এরপরে কী কী না করেছে বিজেপি! ২৯৪টি আসনে আলাদা আলাদা কর্মসূচি।

কৃষক সুরক্ষা যাত্রা থেকে কৃষকদের সঙ্গে ‘একসঙ্গে বসে খাবার খাওয়ার’ মতো কর্মসূচির পর কর্মসূচি পরিচালনা করেছে বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। এই সব কর্মসূচি পালন করতে গিয়ে রাজ্যে সাংগঠনিক কাজে জোর দেওয়া যায়নি বলে সেই সময়েই বিজেপির অনেক নেতা অভিযোগ তুলেছিলেন। তারা বলেছিলেন, ‘আমরা জিতলে রাজ্যের সংগঠনের জোরেই জিতব। আর হারলে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কর্মকাণ্ডের জন্য।’

রোববার নির্বাচনী ফলাফলের প্রাথমিক ধারণা সামনে আসার পরপরই সেই নেতারা আরও স্পষ্ট করে সেসব অভিযোগ তুলছেন। রাজ্য বিজেপির এক শীর্ষ নেতা বলছেন, ‘জেলায় জেলায় অন্য রাজ্য থেকে আসা পর্যবেক্ষকরা স্থানীয় নেতৃত্বের প্রতি অবিশ্বাস দেখিয়েছেন। বাংলার রাজনীতি সম্পর্কে ধারণা না থাকলেও নিজেদের রাজ্যের অভিজ্ঞতা বাংলায় প্রয়োগ করতে চেয়েছেন। বারবার বলেও কাজ হয়নি। যে ফল হতে চলেছে তাতে এটা স্পষ্ট যে, সেটা ঠিক হয়নি।’

বিজেপির অভ্যন্তরের পারস্পরিক দোষারোপ এখনও তীব্র ভাবে সামনে না এলেও এমন আলোচনাও শুরু হয়েছে যে, অনেক জায়গাতেই দলের পুরনো নেতা, কর্মীদের ওপরে ভরসা না রেখে অনভিজ্ঞদের অতিরিক্ত গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

অবশ্য এসব অভিযোগের দায় এড়ানো বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের জন্য একটু কঠিনই বটে।


ডিএনসিসি হাসপাতালে ২ রোগীর শরীরে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট

ঈদের দিনে ঝরে গেল আরও ২৬ প্রাণ, শনাক্ত হাজারের নিচে

ভাসানচরে উৎসব মুখর পরিবেশে রোহিঙ্গাদের প্রথম ঈদ উদযাপন

খালেদা জিয়ার ঈদ সিসিইউতে

ঈদ জামাতে করোনামুক্তির জন্য বিশেষ দোয়া

গৃহবন্দী ঈদ : ছিল না চিরাচরিত কোলাকুলি আর করমর্দন

দেশবাসীকে প্রধানমন্ত্রীর ইদ শুভেচ্ছা

লাশের মিছিলে আরও ৩১ , শনাক্ত ১২৯০

ফেসবুকে তরুণীদের প্রেমের ফাঁদের শিকার ধনাঢ্য তরুণরা

গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত বেড়ে ৮৪

ফের বাড়ছে লকডাউন, বিশেষ ক্ষমতা পাচ্ছে পুলিশ

১৭ তম বিয়ের জন্য প্রস্তুত ১৫১ সন্তানের পিতা

হোটেল রুমে নারীর সঙ্গে বাবুলকে দেখে চমকে উঠেন মিতু

কোম্পানীগঞ্জে কার্টুন দেখা নিয়ে ঝগড়া অভিমানে স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা  

নোয়াখালীর তিন গ্রামে ঈদের নামাজ আদায়

এই সম্পর্কিত আরো