৫ এপ্রিল শেষ হচ্ছে প্রথম ডোজের টিকাদান কার্যক্রম

শুক্রবার, এপ্রিল ২, ২০২১


ঢাকা : দেশে দেশে ভয়াবহ তাণ্ডব চালানো মহামারি করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে দেশব্যাপী চলমান প্রথম ডোজের টিকাদান কার্যক্রম শেষ হচ্ছে আগামী ৫ এপ্রিল। তিন দিনের বিরতি শেষে পরে আবারও ৮ এপ্রিল থেকে করোনার দ্বিতীয় ডোজের টিকাদান কর্মসূচি শুরু হবে।

বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) রাতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচির লাইন ডিরেক্টর ডা. শামসুল হক এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, প্রথম ডোজের টিকাদান ৫ এপ্রিল থেকে বন্ধ হয়ে যাবে। এখানে কোনো সংখ্যার হিসেব নেই। এর আগে যদি কোনো সেন্টারে হাতে থাকা টিকা শেষ হয়ে যায় তবে সেখানে ওই দিন পর্যন্ত প্রথম ডোজ শেষ করে দ্বিতীয় ডোজের অপেক্ষায় থাকতে হবে। আমরা তাদের কাছে দ্বিতীয় ডোজের টিকা পাঠাব। আর ৫ এপ্রিলের পরে কোনো কেন্দ্রের হাতে আরও টিকা থাকলে তা দ্বিতীয় ডোজের জন্য রেখে দিতে হবে।

শামসুল হক বলেন, দ্বিতীয় ডোজ ৮ এপ্রিল থেকেই শুরু হবে। আমাদের হাতে যা টিকা আছে, সেটা দিয়েই দ্বিতীয় ডোজ শুরু করে দেব।

দ্বিতীয় ডোজের জন্য পর্যাপ্ত টিকার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের হাতে যা টিকা আছে, সেটা দিয়েই দ্বিতীয় ডোজ শুরু করব। যথেষ্ট পরিমাণে টিকা মজুদ আছে, সুতরাং এটা নিয়ে চিন্তার কিছু নেই। প্রাথমিক পর্যায়ে টিকা কার্যক্রম পরিচালনার মতো টিকা মজুদ আছে। বর্তমানে ৪২ লাখ ডোজ টিকা হাতে রয়েছে। আরও পাঁচ লাখ টিকা থেকে যাবে। ৪৫ লাখ ডোজ টিকা যদি আমাদের কাছে মজুদ থাকে তাহলে নিশ্চিন্তে দ্বিতীয় ডোজ শেষ করতে পারব।

লাইন ডিরেক্টর ডা. শামসুল হক বলেন, যারা প্রথম ডোজ পেয়েছেন তারা আগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দুই মাস পর নির্ধারিত দিনে দ্বিতীয় ডোজ টিকা পাবেন। ৮ এপ্রিল দ্বিতীয় ডোজ শুরুর দু-একদিন আগে তাদের মোবাইল ফোন নম্বরে এসএমএস যাবে। এ দিন প্রথম ডোজের ফরমের অবশিষ্ট অংশ নিয়ে গেলেও হবে। যার যেদিন তারিখ আছে তার দুয়েক দিন আগে এসএমএস যাবে।

এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, ৮ এপ্রিল থেকেই দ্বিতীয় ডোজ টিকা কার্যক্রম শুরু হবে। নতুন করে টিকা আনতে আমাদের চেষ্টার কোনো ঘাটতি নেই। আশা করি, দ্রুত সময়ের মধ্যে আরও টিকা এসে যাবে। তখন আর সমস্যা থাকবে না।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ৫ নভেম্বর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট ও বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের মধ্যে টিকা আমদানির বিষয়ে চুক্তি হয়। এরপর ২১ জানুয়ারি ভারত সরকারের উপহার হিসেবে দেশে আসে ২০ লাখ ডোজ টিকা। আর ২৫ জানুয়ারি কেনা টিকার প্রথম চালান আসে। ওই সময়ে ৫০ লাখ ডোজ টিকা আসে দেশে। এছাড়া কেনা টিকার দ্বিতীয় চালান আসে ২২ ফেব্রুয়ারি। প্রতি চালানে ৫০ লাখ ডোজ টিকা আসার কথা থাকলেও ওইদিন ২০ লাখ ডোজ টিকা আসে।

হাতিয়ার বিশিষ্ট শিল্পপতি মাহমুদ আলী রাতুল আর নেই

হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে খালেদা জিয়াকে

করোনা উপসর্গ নিয়ে উপসচিব মারুফ হাসানের ইন্তেকাল

সারাদেশে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় আরও ৯৪ জনের মৃত্যু

মৃত্যুর মিছিলে ভারত, একদিনে আক্রান্ত ২ লাখ প্রায়

করোনার মৃত্যুর মিছিলে কবর খুঁড়তে আধুনিক যন্ত্রের ব্যবহার

বায়তুল মোকাররম উড়িয়ে দিলে দুর্নীতিবাজ কমে যাবে: কাদের মির্জা

হাতিয়ায় কঠিন লকডাউন ভঙ্গ করে ইউএনওর ইফতার পার্টি

সুবর্ণচরে সুইসাইড নোট লিখে স্কুল ছাত্রী আত্মহত্যা

হাতিয়ায় দিনব্যাপী ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান

হাতিয়ায় আওয়ামীলীগ দলীয় চেয়ারম্যানপ্রার্থীর দুই কর্মীকে কুপিয়ে জখম

দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েও করোনা আক্রান্ত সাংসদ বাদশা

নোয়াখালীতে ৭৬ মামলায় ১লক্ষ ৫হাজার টাকা জরিমানা

করোনায় মারা গেলেন আবদুল মতিন খসরু

সম্মিলিত শক্তি দিয়ে করোনাকে পরাজিত করতে হবে- কাদের

এই সম্পর্কিত আরো