কুমিল্লায় আত্মীয়র বাসায় সম্রাট ‘লুকিয়ে ছিলেন ৩ দিন ধরে’

রবিবার, অক্টোবর ৬, ২০১৯

ক্যাসিনোকাণ্ডে আলোচিত দুই যুবলীগ নেতা ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট ও এনামুল হক আরমানকে কুমিল্লায় যে বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, সেখানে তারা ছিলেন গত তিন দিন ধরে।  

তাদের গ্রেপ্তার করতে ‘অনেক কষ্ট করতে’ হয়েছে মন্তব্য করে র‌্যাব মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেছেন, “আত্মগোপনে থাকার জন্য সম্রাট বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করেছিল। মূলত ক্যাসিনো ব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগে আমরা তাদের গ্রেপ্তার করেছি।”

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থানার আলকরা ইউনিয়নের কুঞ্জশ্রীপুর গ্রামের ওই বাড়ি থেকে শনিবার গভীর রাতে গ্রেপ্তার করা হয় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি সম্রাট ও সহ-সভাপতি আরমান।

ওই বাড়ির মালিক মনির হোসেন স্টার লাইন পরিবহনের একজন পরিচালক, তিনি সম্রাটের দূর সম্পর্কের খালাতো ভাই। সম্রাট আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন যুবলীগের নেতা হলেও মনির জামাত সমর্থক হিসেবে পরিচিত বলে আলকরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক হেলাল জানান।তিনি বলেন, মনিরের স্ত্রীর ভাই হাজী আলাউদ্দিন স্টার লাইন পরিবহনের মালিক এবং ফেনী পৌরসভার মেয়র। আলাউদ্দিন এক সময় জাতীয় পার্টি করলেও এখন আওয়ামী লীগের সঙ্গে আছেন।

“ওই বাসায় মনির বা তার পরিবারের কেউ থাকত না। সেখানে যে সম্রাট বা আরমান আছে, এটাও আমরা জানতাম না। তবে ফেনী পৌরসভার মেয়র আলাউদ্দিনকে গত ২/৩দিন ঘনঘন ওই বাড়িতে যাতায়াত করতে দেখা গেছে।”

আলাউদ্দিন বলেছেন, মনিরের বাসায় সম্রাটের অবস্থান করার খবর তারও ‘আগে জানা ছিল না’।

“শনিবার র‌্যাবের অভিযানের খবর জানার পর রাত ১১টার দিকে মনিরকে ফোন করেছিলাম। সম্রাট কেন তার বাসায়, তা জানতে চেয়েছিলাম।

মনির আমাকে বলেছে, তিন দিন আগে তারা (সম্রাট ও আরমান) ওই বাসায় গেছে। রোববার সকালেই তারা ঢাকা ফিরে যাবে বলে জানিয়ে রেখেছিল। তার আগেই র‌্যাব তাদের গ্রেপ্তার করে।”

এক প্রশ্নের জবাবে আলাউদ্দিন বলেন, ওই বাসা অধিকাংশ সময় ফাঁকাই থাকে। মনিরের পরিবার থাকে ঢাকায়।

সম্রাট বা আরমানের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ নেই দাবি করে আলাউদ্দীন বলেন,  “গত বৃহস্পতিবার আমি বিদেশ থেকে দেশে ফিরেছি। আমি তাদের বিষয়ে কিছু জানি না।”

গত ১৮ সেপ্টেম্বর ঢাকার মতিঝিলের ক্লাবপাড়ায় র‌্যাবের অভিযানে অবৈধ ক্যাসিনো চলার বিষয়টি প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই আলোচনায় ছিলেন সম্রাট ও আরমান।

সেদিন র‌্যাবের অভিযানের সময় মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া চক্রের ভেতরে সম্রাটের বিশাল ছবি দেখা যায়। ওই ক্লাবের ক্যাসিনো তিনিই চালাতেন এবং মতিঝিল ক্লাবপাড়ায় অন্য ক্যাসিনোগুলো থেকেও প্রতিদিন নির্দিষ্ট হারে চাঁদা তার কাছে যেত বলে গণমাধ্যমে খবর আসে।

সম্রাটের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত যুবলীগ নেতা আরমানও দীর্ঘদিন ধরে ক্যাসিনোর কারবারে জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি তিনি ঢাকাই সিনেমাতেও টাকা খাটাচ্ছিলেন।

তাদের গ্রেপ্তারের পর জিজ্ঞাসাবাদ করেন র‌্যাব কর্মকর্তারা। পরে তাদের নিয়ে আসা হয় ঢাকায়। কাকরাইলে সম্রাটের অফিস, শান্তিনগর ও মহাখালীতে তার দুই বাসায় এবং মিরপুর ২ নম্বরে আরমানে বাসায় রোববার দুপুর থেকে শুরু হয় র‌্যাবের অভিযান।

র‌্যাব মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ দুপুরে নিজের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, “ক্যাসিনোতে অভিযান শুরুর দুই দিনের মধ্যে সম্রাট আত্মগোপনে চলে যায়। ক্যাসিনোর সাথে আরও যারা জড়িত, তাদের খুঁজে বের করতে র‌্যাব কাজ করছে। যেই এর সাথে জড়িত হোক, তাদের আইনের আওতায় আনা হবে।”

হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে খালেদা জিয়াকে

করোনা উপসর্গ নিয়ে উপসচিব মারুফ হাসানের ইন্তেকাল

সারাদেশে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় আরও ৯৪ জনের মৃত্যু

মৃত্যুর মিছিলে ভারত, একদিনে আক্রান্ত ২ লাখ প্রায়

করোনার মৃত্যুর মিছিলে কবর খুঁড়তে আধুনিক যন্ত্রের ব্যবহার

বায়তুল মোকাররম উড়িয়ে দিলে দুর্নীতিবাজ কমে যাবে: কাদের মির্জা

হাতিয়ায় কঠিন লকডাউন ভঙ্গ করে ইউএনওর ইফতার পার্টি

সুবর্ণচরে সুইসাইড নোট লিখে স্কুল ছাত্রী আত্মহত্যা

হাতিয়ায় দিনব্যাপী ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান

হাতিয়ায় আওয়ামীলীগ দলীয় চেয়ারম্যানপ্রার্থীর দুই কর্মীকে কুপিয়ে জখম

দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েও করোনা আক্রান্ত সাংসদ বাদশা

নোয়াখালীতে ৭৬ মামলায় ১লক্ষ ৫হাজার টাকা জরিমানা

করোনায় মারা গেলেন আবদুল মতিন খসরু

সম্মিলিত শক্তি দিয়ে করোনাকে পরাজিত করতে হবে- কাদের

মামুনুল হকের ‘স্ত্রী’রা নিখোঁজ কেন ?

এই সম্পর্কিত আরো